ইউটিউব

ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করার উপায়

ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করার উপায় সম্পর্কে জনতে পুরো কন্টেন্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। বর্তমানে ইউটিউবের জনপ্রিয়তা দিনদিন বেড়েই চলেছে। প্রতিদিন সারা বিশ্বে প্রায় ৫০০ কোটি মানুষ ভিডিও দেখছে এই মাধ্যম ব্যাবহার করে। এটি পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম সাইট ও দ্বিতীয় বৃহত্তম সার্চ ইঞ্জিন।

এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, একজন ইউটিউব দর্শকের ভিডিও দেখার গড় সময়কাল ৪০ মিনিট। আর এই মাধ্যম ব্যাবহার করে উপার্যন করা যচ্ছে অনেক টাকা। এখান থেকে টাকা উপার্যনের অনেক উপায় আছে। অনেকে আবার একে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। তবে ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করতে হলে ধৈর্য ধরতে হবে ৬ মাস থেকে ১ বছর তবেই টাকা উপার্জন করা সম্ভব। চ্যানেল খোলামাত্রই টাকা উপার্জন করা যায় না। তবে টাকা উপার্যন বিষয়টি নির্ভর করবে আপনার কাজের সঠিক উপায়ের উপর।

ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করার উপায়

কিছু মানুষের ধারনা শুধু গুগল এডসেন্স বা ইউটিউব মনিটাইজেশনের মাধ্যমেই টাকা উপার্জন করা যায় কিন্তু বিষয়টি এমন নয়। ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করার উপায় হলোঃ

১. ইউটিউব পার্টনার প্রোগ্রাম
২. যেকোনো প্রোডাক্ট বিক্রি করা
৩. ভিডিও এডিটিং সার্ভিস
৪. প্রোডাক্ট রিভিউ ও অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং
৫. অনলাইন কোর্স
৬. স্পন্সরড কন্টেন্ট
৭. ডোনেশন

আরও পড়ুনঃ সহজ উপায়ে অনলাইন থেকে টাকা আয়।

১.ইউটিউব পার্টনার প্রোগ্রামঃ

ইউটিউব প্রোগ্রাম পার্টনারে যুক্ত হলে যে শুধু এডসেন্স নিয়ে টাকা ইনকাম করা যাবে তা নয় এর সাথে আরো বাড়তি সুবিধা রয়েছে। ইউটিউব প্রোগ্রাম পার্টনারে যুক্ত হতে গেলে কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে আপনাকে। পরে প্রোগ্রাম পার্টনারে যুক্ত হলে ইউটিউব ভিডিওতে যে বিজ্ঞাপন দেওয়া হয় সেই বিজ্ঞাপনের জন্য ইউটিউব তার পক্ষ থেকে টাকা দিবে আপনাকে। তার পাশাপাশি ইউটিউব সাবস্ক্রিপশন ফিস, সুপার চ্যাট, চ্যানেল মেম্বারশিপ প্রোগ্রামের মতো সুবিধা পাওয়া যাবে। ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করার উপায় এর একটি প্রক্রিয়া।

ইউটিউব প্রোগ্রাম পার্টনারে যুক্ত হতে হলে গত ১ বছরে আপনার ইউটিউব চ্যানেলে ১০০০ সাবস্ক্রাইবার ও ৪০০০ ঘন্টা ভিডিও ওয়াচটাইম থাকতে হবে। আপনার চ্যানেলটি কি ইউটিউব প্রোগ্রাম পার্টনারে যুক্ত হতে পারবে কিনা তার জন্য আপনার

• ইউটিউব স্টুডিও তে প্রবেশ করতে হবে
• বাম পাশের মেনু থেকে monetisation এ ক্লিক করতে হবে
• পরে আপনার চ্যানেলের মনেটাইজেশন এলিজিবিটি স্ট্যাটাস আসবে
• যদি আপনার চ্যানেল মনেটিজেশনের জন্য উপযুক্ত হয়ে থে তবে Apply now বাটন আসবে
• যদি উপযুক্ত না হয় তবে এমন আসবে

ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করার উপায়
ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করার উপায়

ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করার উপায় সম্পর্কে ইউটিউব কর্তৃক দেওয়া কিছু গাইডলাইন মেনে চলতে হবে। এমন কিছু গাইডলাইন হলোঃ

এড রেভিনিউঃ

ইউটিউব ভিডিও এর এড রেভিনিউ পেতে হলে আপনার অবশ্যই ভিডিও এডভার্টাইজার- ফ্রেন্ডলি হতে হবে। নতুবা বিজ্ঞাপনদাতা আপনার এড শো করতে রাজি হবে।না। আপনার বয়স ১৮ বা তার অধিক হতে হবে। আর তা না হলে আপনার বাবা অথবা মায়ের নামে গুগল এডসেন্স একাউন্ট খুলতে পারবেন।

ইউটিউব প্রিমিয়াম রেভিনিউঃ

আপনার ভিডিও যদি কোনো ইউটিউব প্রিমিয়াম মেম্বার দেখে তবে ঐ ভিউয়ার এর সাবস্ক্রিপশন এর কিছু অংশ রেভিনিউ হিসেবে পাবেন। যদিও বাংলাদেশে এই ফিচারের ব্যাবহার তেমন দেখা যায় না কিন্তু ভবিষ্যতে এর ব্যাবহার হতে পারে।

চ্যানেল মেম্বারশিপঃ

মিনিমাম ৩০ হাজার সাবস্ক্রাইবার না থাকলে চ্যানেল এর সাবস্ক্রাইবারদের কাছে মেম্বার শিপ সেল করা যাবে না। মেম্বারশিপ চালুর মাধ্যমে টাকা উপার্জিত হবে। কিন্তু এই ফিচারটি বাংলাদেশে ব্যাবহারের মাত্রা নেই বললেই চলে।

সুপার চ্যাটঃ

লাইভ স্ট্রিমের সময় চ্যাটে ভিউয়াররা অর্থ প্রদান করে থাকে একে বলে সুপার চ্যাট। তবে এই ফিচারটি বাংলাদেশে চালু নেই। কিন্তু চালু হলে অনেক টাকা উপার্জন করা যাবে।

২. ইউটিউব প্রোডাক্ট বিক্রির মাধ্যমে টাকা উপার্জনঃ

বর্তমানে ইউটিউবে পন্য বিক্রি করেও অনেক টাকা উপার্জন করা যাচ্ছে। আপনার ইউটিউবের ফ্যান ফলোয়াররা যদি আপনার কাছ থেকে পন্য নিতে আগ্রহী হন তবে ইউটিউব চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার দের কাছে খুব সহজেই যেকোনো পন্য বিক্রি করতে পারবেন। এর পাশাপাশি আপনি ভিউয়ারদের কাছ থেকে পন্য সম্পর্কে মতামত নিতে পারেন। আপনার চ্যানেলে ফলোয়ার যত বেশি হবে তত বেশি টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

৩. প্রোডাক্ট রিভিউ ও অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংঃ

প্রোডাক্ট রিভিউ বলতে আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেল এর যেকোনো পন্য অথবা গেজেট রিভিউ করে আপনার দর্শকদের দেখাতে পারেন। আর আপনার এই ভিডিও দেখে কেউ যদি এই পন্য আলনার লিংক থেকে কিনে নিলে নির্দিষ্ট কমিশন পাবেন। এটাই হলো অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। ভিডিও এর ভিতরে পন্য সম্পর্কে ধারণা দিবেন ও পন্য কেনার জন্য সাবস্ক্রিপশনে লিংক শেয়ার করবেন। আবার এসব পন্যের পাশাপাশি আপনি আপনার নিজস্ব মার্চেন্ডাইচ এর প্রচার করতে পারেন ভিডিও এর মাধ্যমে।

৪. অনলাইন কোর্স বিক্রি করে অনলাইন থেকে আয়ঃ

আপনি যদি শিক্ষামূলক ইউটিউব চ্যালেন চালান সেক্ষেত্রে আপনি চাইলেই তৈরি করতে পারেন অনলাইন কোর্স। আবার আপনার ভিডিও দেখার পরে তা থেকে কেউ কিছু শিখতে চাইলে অনলাইন কোর্স সেল করতে পারেন। যা হতে পারে আপনার আয়ের অনেক বড় একটা মাধ্যম। আবার অন্য প্রতিষ্ঠানের অনলাইন ভিত্তিক কোর্স আপনার চ্যানেলে প্রচারের মাধ্যমে টাকা পেরে পারেন।

৫.স্পন্সর কন্টেন্ট এর মাধ্যমে থেকে আয়ঃ

আপনার চ্যানেলের যদি যথেষ্ট পরিমান সাবস্ক্রাইবার থাকে তবে অনেক প্রতিষ্ঠান আপনার সাথে যোগাযোগ করবে স্পন্সরশিপ এর ব্যাপারে। একটা ভিডিও বানানোর জন্য কোনো কোম্পানি আপনাকে ১০ হাজার থেকে শুরু করে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত দিতে পারে। আর আপনার চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার জদি ৫০ হাজার বা ১ লাখ হয়ে যায় তবে খুব সহজেই আপনি পেয়ে যাবেন স্কলারশিপ।

৬.ডোনেশনের মাধ্যমে ইউটিউব থেকে আয়ঃ

ইউটিউব চ্যনেলেই যদি আপনার আয়ের অন্যতম উৎস হয়ে থাকে তবে আপনাকে ফুল টাইম ইউটিউবিং করতে হবে। আর সেজন্য প্রথমে কম টাকা উপার্যিত হলেও পরে ধীরে ধীরে তার পরিমান বাড়বে। যারা ছোট কন্টেন্ট ক্রিয়েটর তারা খুব বেশি টাকা ইনকাম করতে পারে না তখন তারা সাবস্ক্রাইবার দের কাছে সাহায্য চাইতে পারে। আর যদি চ্যানেলটি মনিটাইজেশন করা থাকে তবে সাবস্ক্রাইবার দের থেকে ডোনেশন নিতে পারেন। আবার আপনি চাইলে তাদের কাছে ডোনেশনে বিনিময় প্রিমিয়াম কন্টেন্ট দিতে পারেন। এভাবে ডোনেশন নিয়ে আপনি ভালো টাকা উপার্জন করতে পারেন।

যেভাবে ইউটিউব চ্যানেল খুলবেন এই লিংকে ঢুকে তার বিস্তারিত দেখুন।

ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম ও এর সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন ও উত্তরঃ

ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করার উপায় নিয়ে সবারই কিছু না কিছু প্রশ্ন থাকে।

ইউটিউব প্রতি ১ হাজার ভিউয়ে কত দেয়ঃ এর সঠিক পরিমান বলা যায় না তবে এর পরিমান নির্ভর করবে আপনার ভিডিওটির বিষয় কি, কে দেখছে, কোথায় থেকে দেখছে এর উপরে। মোটামুটি ১ হাজার ভিউয়ে . ৫০ থেকে ১ ডলার এত মতো পেতে পারেন।

এই আয় কি হালালঃ আপনার ভিডিওটি অবশ্যই ইসলামের সাথে সাংঘর্ষিক বিষয় হয়ে থাকলে সমস্যা হবে। আপনি যদি এমন বিজ্ঞাপন বন্ধ করে দেন তবে আর সমস্যা হবে না।

ইউটিউব থেকে টাকা কিভাবে তুলবোঃ ইউটিউব থেকে উপার্জনকৃত টাকা আপনি ব্যাংক একাউন্ট এর মাধ্যমে তুলতে পারবেন। প্রতিমাসের ২২ তারিখে আপনার উপার্জন করা টাকা পাঠিয়ে দেওয়া হবে। ৪-১০ দিন লাগবে এই টাকা একাউন্টে আসতে।

ভিডিওতে কি ব্যাবহার করা যাবেঃ ইউটিউবে আপনি ভিডিও আপলোড করতে চাইলে আপনাকে কিছু গাইডলাইনস মানতে হয়। এক্ষেত্রে আপনি কোনো বাজে ভাষা বা হিংস্রাত্মক বিষয় দেখাতে পারবেন না। বিপজ্জনক কোনো কিছু দেখানো যাবে না। মাদক, অন্যের প্রতি হিংসা, তামাক আগ্নেয়াস্ত্র সম্পর্কিত কিছু দেখানো যাবে না। অবশ্যই এড়িয়ে চলতে হবে।

এছাড়াও ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করার উপায় সম্পর্কে সঠিক ও বিস্তারিত ধারণা নিতে ইউটিউবে ভিডিও দেখুন।

ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করার উপায়

One Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button