প্রচ্ছদ

চাহিদার চেয়ে বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরেও হবে লোডশেডিং

গ্রীষ্মের গরম বাড়ার সাথে সাথে লোড শেডিংও বাড়তে শুরু করেছে। সকারের হিসাব মতে চাহিদার চেয়ে অন্তত ১০ হাজার মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতা বেশি।

তবুও জিরো লোডশেডিং আওয়ারে পৌঁছানো যাচ্ছে না। এপ্রিলে সবচেয়ে বেশি বিদ্যুতের চাহিদা তৈরি হয়। এপ্রিলে বিদ্যুতের চাহিদা হবে ১৫,৭৬৬ মেগাওয়াট।

গত বছর এর পরিমান ছিল ১৪,৭৩৫ মেগাওয়াট। ২৭ মার্চ রবিবার দেশে মোট ১৩,৩৬৯ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়েছে। রোদের পরিমান বাড়লে চাহিদা বাড়বে ২,৩৯৭ মেগাওয়াট।

সংশ্লিষ্টদের মতে বিদ্যুৎ উৎপাদনে মূল সংকট হলো জ্বালানি। বিদ্যুৎ উৎপাদনে যে পরিমান গ্যাস সরবরাহ করা দরকার তার অর্ধেক সরবরাহ হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ বেড়ে যাবে। বিতরণ ব্যাবস্থার ত্রুটির কারণেও অনেক সময় লোডশেডিং হয়।

শহরের তুলনায় গ্রামে লোডশেডিংয়ের সমস্যা বেশি হয়। তাই চলতি বছর আগে থেকেই কিছু ব্যাবস্থা নিয়েছে সরকার। তবে লোডশেডিং যে একেবারেই হবে না তা না কিন্তু তা থাকবে সহনীয় মাত্রায়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button