জন্ম নিবন্ধন

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম ২০২২

আইন অনুযায়ী শিশুর জন্মের ৪৫ দিনের মধ্যেই জন্ম সনদ ইস্যু করতে হয়। রাষ্ট্রে বসবাসকারী সকল নাগরিকের এই জন্ম সনদ থাকা বাধ্যতামূলক। জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম ২০২২স্কুল, কলেজে ভর্তি হতে এমনকি চাকরির জন্য হলেও এই জন্ম নিবন্ধন খুব দরকারি। আবেদন সরাসরি ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে করা যায়। আবার অনলাইনে বর্তমানে ঘরে বসেই জন্ম নিবন্ধন করা যায়। এই নিবন্ধন পূরণ করতে গিয়ে অনেক সময় ভুল হয়ে যায়। কিছু ক্ষেত্রে নামের ভুল, জন্ম তারিখের ভুল, বা বাবা মায়ের কোনো তথ্যের ভুল হতে পারে। ভুল হয়ে গেলেও এই সমস্যার সমাধান করা যায়। তাই ভুল হয়ে গেলেও এই নিয়ে দুশ্চিন্তার করাণ নেই। জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার সুযোগ আছে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার আগেই কিছু কাগজপত্র নিজের কাছে রাখতে হবে যেগুলো দিয়ে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করা যায়। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র হলোঃ

১.আবেদনকারীর অনলাইনে নিবন্ধিত জন্ম নিবন্ধন।
২.পিতা ও মাতার অনলাইনে নিবন্ধিত জন্ম নিবন্ধন।
৩.শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ বা টিকা সনদ বা তথ্য প্রমাণের জন্য কার্যকরী যেকোনো সনদ।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর নিয়ম

(জন্ম নিবন্ধন তথ্য সংশোধন ওয়েবসাইট)

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার আগেই এর কিছু নিয়ম জানা জরুরি

• জন্ম নিবন্ধনে যদি পিতা বা মাতার কোনো তথ্য সংশোধন করতে হয় তবে পিতা বা মাতার সনদ লাগবে
• পিতা বা মাতার জন্ম নিবন্ধনে যদি কোনো ভুল থাকে আগে তা ঠিক করে সংশোধন করতে হবে। পরে নিজের জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের আবেদন করা যাবে।
• পিতা বা মাতার নিবন্ধনের নম্বর দেওয়া থাকলে সংশোধন করার পরে পিতা ও মাতার সংশোধিত নাম দেখা যাবে।
• আবেদনকারীর জন্ম যদি ০১.০১.২০০১ এর আগের হয় বা পিতা মাতার জন্ম সনদ না থাকে তবে পিতা বা মাতার নিবন্ধন সংশোধন করা যাবে।
• পিতা বা মাতা মৃত হলে মৃত্যুর প্রমাণপত্র সাবমিট করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন অনলাইন আবেদনের নিয়মঃ

অনেকে মনে করেন জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করা অনেক কঠিন ব্যাপার কিন্তু আসলেই তা না। এটি খুব সহজ একটা প্রক্রিয়া। সংশোধন করার আগে জন্ম সনদ যদি অনলাইন করা না থাকে তবে প্রথমে তা অনলাইন করে নিতে হবে।

*জন্ম সনদের তথ্য সংশোধন এর আবেদন করতে ভিজিট করতে হবে https://bdris.gov.bd/br/correction লিংকে।

*এই লিংকের প্রদর্শিত জন্ম সনদের তথ্য সংশোধন ফরমের প্রথম বক্সে জন্ম নিবন্ধন নেই ম্বর দিতে হবে।

*দ্বিতীয় বক্সে ১৭ ডিজিটের অনলাইন জন্ম নিবন্ধনের নম্বর লিখতে হবে। পরে অনুসন্ধান বাটনে ক্লিক করতে হবে।

*তথ্য সঠিক হলে জন্ম সনদের তথ্য দেখা যাবে ও তথ্যের পাশে ‘নির্বাচন করুন’ বাটন দেখা যাবে। সেখানে ক্লিক করতে হবে।

*পরে ‘আপনি কি নিশ্চিত’ এই লেখা আসলে সেখানে ক্লিক করতে হবে।

*এবার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার প্রক্রিয়া চালু হবে। পরে যে পৌরসভা বা ইউনিয়ন থেকে জন্ম নিবন্ধন ইস্যু করা হয়েছে তার ঠিকানা দিতে হবে ও ‘পরবর্তী ‘ বাটনে ক্লিক করতে হবে।

*পরে সংশোধিত তথ্য বক্সে দিতে হবে।কারণ হিসেবে ‘ ভুল লিপিবদ্ধ করা হয়েছে’ সিলেক্ট করতে হবে।

*একাধিক তথ্য সংশোধন করতে চাইলে ‘ আরো তথ্য সংশোধন করুন’ বাটনে ক্লিক করতে হবে।

*ঠিকানা সংশোধন করতে চাইলে বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানার তথ্য দিতে হবে।

*পরে আবেদনকারীর সাথে ব্যাক্তির সম্পর্ক, নাম, ফোন নম্বর ও ইমেইল দিতে হবে।

*আবেদনকারীর নিজের তথ্য সংশোধন করতে ‘নিজ’ সিলেক্ট করে ফোন নম্বর ও ইমেইল দিতে হবে। পরে নিবন্ধন সংশোধনের আছে সম্পর্কিত বিষয় আপলোড করতে গিয়ে ‘সংযোজন’ বাটনে ক্লিক করতে হবে।

*প্রয়োজনীয় ফাইল নির্বাচন হয়ে গেলে ওপেন বাটনে ক্লিক করতে হবে। আপলোড করা ফাইলেই রিভিউ দেখা যাবে ও ড্রপ ডাউন মেন্যু থেকে ফাইলের ধরণ সিলেক্ট করে স্টার্ট বাটনে ক্লিক করতে হবে। পরে সরাসরি দরকারি কাগজ আপলোড হয়ে যাবে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর ফি

এক্ষেত্রে দুই উপায়ে ফি পরিশোধ করা যাবে।
১.চালানের মাধ্যমে
২. অনলাইনে।
জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার সময় ‘ ফি আদায়’ বাটনে ক্লিক করলেই ফি জমা হয়ে যাবে। আবেদন সফল হয়েছে লেখা মেসেজ আসলে নিশ্চিত হওয়া যাবে যে আবেদন সঠিকভাবে হয়েছে। পরে প্রিন্ট বাটনে ক্লিক করে আবেদনপত্র প্রিন্ট করে নিয়ে দরকারি কাগজপত্র নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে বা পৌরসভায় জমা দিতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন সম্পর্কিত আরও পড়ুন…

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন আবেদনের নিয়ম ২০২২


জন্ম নিবন্ধন সংশোধন আবেদন ফরম অবশ্যই ডাউনলোড করে রাখতে হবে। পরে ফরম ইউনিয়ন পরিষদে বা পৌরসভায় জমা দিলেই কেবলমাত্র আবেদন গৃহীত হবে।

পরে আপনার আবেদন যাচাই করে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহণ করবে দাখিলকৃত কার্যালয়। সকল প্রক্রিয়া শেষ হলে সংশোধিত জন্ম নিবন্ধন হাতে পাওয়া যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button