গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সমাচার

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম – ২০২১

ড্রাইভিং লাইসেন্স কী এবং সহজ ও নির্ভুলভাবে ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম নিয়ে বিস্তারিত আলোচলা করা হবে এই লিখায় । আমরা আমাদের প্রতিদিনের জীবনে কখনো  যাত্রী বা কখন চালক হয়ে যানবাহনে  চলাচল করি। আপনি গাড়ি  চালনায় কতটা দক্ষ তা নির্ভর  করে আপনার ড্রাইভিং  লাইসেন্স এর উপরে। লাইসেন্স  তৈরি করতে একটু সময়ের দরকার হয় এবং এটি একটি  জটিল প্রক্রিয়া।

যা যা থাকছে এই লিখায়

ড্রাইভিং  লাইসেন্স  এর  ধারণা  ও  প্রয়োজনীয়তা

একজন চালকের জন্য ড্রাইভিং  লাইসেন্স  এর  গুরুত্ব অপরিহার্য।  রাস্তায়  গাড়ি চালানোর সময় সাথে ড্রাইভিং লাইসেন্স  থাকা চালকের দায়িত্ব। ড্রাইভিং  লাইসেন্স  ছাড়া গাড়ি  চালানো  এক প্রকার অপরাধ এর জন্য শাস্তি  ও জরিমানা পর্যন্ত  হতে পারে। রাস্তায় যদি ট্রাফিক পুলিশ আপনাকে আটকায় শুরুতেই এই লাইসেন্স  দেখাতে হবে। এই ড্রাইভিং  লাইসেন্স  অবশ্যই  আপনার সাথে সবসময় রাখতে হবে এর দ্বারা প্রমান হয় আপনার গাড়ি  চালানোর বৈধতা। আপনি যদি কোনো  দূর্ঘটনার মুখে পড়েন এই লাইসেন্স  আপনার পরিচয় চিহ্নিত  করতে সাহায্য করে এমনকি নিজের বয়স চিহ্নিত করা, ব্যাঙ্ক  এ্যাকাউন্ট খুলা এবং বিদেশে ভ্রমণকালেও ড্রাইভিং  লাইসেন্স  এর  প্রয়োজন হয়। এই লিখাতে ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম সম্পর্কেই ধারণা দেওয়া হবে ।

ড্রাইভিং করার জন্য আবশ্যক বিষয় হল ড্রাইভিং লাইসেন্স। ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালানো আইনগত অপরাধ । তাই প্রত্যেকেরেই উচিত ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত জানা ।

ড্রাইভিং লাইসেন্স  পাওয়ার শর্ত বা ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম ।

কিছু শর্ত পূরণ  ছাড়া  কেউ চাইলেই ড্রাইভিং  লাইসেন্স  পেতে পারবে না। শর্তগুলো  হলোঃ

  1.    লার্নার  বা  শিক্ষানবিশ  লাইসেন্সঃ ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম এ আপনাকে আগেই লার্নার বা শিক্ষানবিশ  লাইসেন্স  পাওয়ার ব্যাবস্থা করতে হবে।
  2.     শিক্ষাগত  যোগ্যতাঃ আবেদনকারীর  শিক্ষাগত যোগ্যতা  কম্পক্ষে ৮ম শ্রেণী।
  3.    বয়সঃ সাধারান ও অপেশাদার  ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ক্ষেত্রে বয়স ১৮  এবং পেশাদারের ক্ষেত্রে ২১  বছর।
  4.    সুস্থতাঃ আবেদনকারী শারীরিক ও মানসিক দিক দিয়ে সুস্থ হতে হবে।

ড্রাইভিং  লাইসেন্স  এর  প্রকারভেদ

১. লার্নার বা শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং  লাইসেন্স
২. স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং  লাইসেন্স
৩. আন্তর্জাতিক  ড্রাইভিং  লাইসেন্স

লার্নার বা  শিক্ষানবিশ  ড্রাইভিং  লাইসেন্স

লার্নার বা  শিক্ষানবিশ  ড্রাইভিং  লাইসেন্স
লার্নার বা  শিক্ষানবিশ  ড্রাইভিং  লাইসেন্স

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম এ এটি পাওয়ার পূর্বশর্ত  হলো  লার্নার বা শিক্ষানবিশ  লাইসেন্স করে নেওয়া অর্থাৎ এটি আপনাকে পূর্ব থেকেই থাকতে হবে। এই লাইসেন্স  ব্যাবহার করে কেউ যদি গাড়ি  চালানো শিখে নেয় তাহলে পরবর্তীতে  সে স্মার্টকার্ড লাইসেন্স  এর আবেদন করতে পারবে। এই লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম বা পাওয়ার প্রক্রিয়া  খুবই সহজ।

লার্নার লাইসেন্স  এর  প্রয়োজনীয়  কাগজপত্র

• লার্নার বা শিক্ষানবিশ  লাইসেন্স ফরম
  • ৩ কপি স্ট্যাম্প সাইজ ও ২ কপি পাসপোর্ট  সাইজ ছবি
  • রেজিস্টার  ডাক্তারের কাছ থেকে তোলা মেডিকেল সার্টিফিকেট
  • এনআইডি বা জন্ম সনদের কপি
  • স্থায়ী  বা অস্থায়ীভাবে বসবাসরত  বাসার ১ মাসের ইউটিলিটি  বিলের  ফটোকপি
  • বিআরটি এর কাছ থেকে ব্যাংকে ফি পরিশোধের  রসিদ
  • আগে ড্রাইভিং  লাইসেন্স  থাকলে এর তথ্য

লার্নার বা  শিক্ষানবিশ  ড্রাইভিং  লাইসেন্স  এর  আবেফন ফরম

লার্নার বা  শিক্ষানবিশ  ড্রাইভিং  লাইসেন্স  এর  আবেফন ফরম  - পাতা (১)
লার্নার বা  শিক্ষানবিশ  ড্রাইভিং  লাইসেন্স  এর  আবেফন ফরম – পাতা (১)
লার্নার বা  শিক্ষানবিশ  ড্রাইভিং  লাইসেন্স  এর  আবেফন ফরম  - পাতা (২)
লার্নার বা  শিক্ষানবিশ  ড্রাইভিং  লাইসেন্স  এর  আবেফন ফরম – পাতা (২)

লার্নার লাইসেন্স  করার নিয়ম

উপরের কাজগুলো  সম্পন্ন করে লার্নার লাইসেন্স  এর  আবেদন  কাজ শুরু করতে পারবেন।

আবেদনের ধাপঃ

১ম ধাপ- বিআরটিএ থেকে সংগ্রহ  করা ফরমটির প্রথম  পৃষ্ঠা নিজে পুরন করা।
২য় ধাপ- ২য় পৃষ্ঠায় ডাক্তারে সই সহ সার্টিফিকেটটি যুক্ত করা।
৩য় ধাপ- ফরমটির সাথে পরিশোধ  করা ফি এর রসিদ,এনআইডি বা জন্ম সনদের কপি,ইউটিলিটি বিলের কপি যুক্ত কিরা।
৪র্থ ধাপ- পূরণকৃত ফরমটি বিআরটিএ অফিসে জমা দেওয়া।
৫ম ধাপ- সবকিছু ঠিক থাক্লে ১/২ দিন পরে দেওয়া সময়ে লাইসেন্স  ও ফরমটি সংগ্রহ  করুন।
৬ষ্ঠ ধাপ- ফরম ও লাইসেন্স  সংগ্রহ  করে অফিসের নির্দিষ্ট  কর্মী  দিয়ে সই করিয়ে নিন।
৭ম ধাপ- ফরমটি রিসিপশন বুথ এ জমা করে লাইসেন্স টি নিয়ে যান। পরবর্তীতে এর মাধ্যমে  স্মার্টকার্ড লাইসেন্স  এর  আবেদন  করতে পারবেন।

এর মেয়াদ হবে ৩ মাস এর পরে আপনি এটি আর ব্যাবহার করতে পারবেন না।

লার্নার লাইসেন্স  এর  পরিক্ষা  পদ্ধতি

লার্নার লাইসেন্স পাওয়ার সাধারণত ২/৩ মাস পরে একটা  পরিক্ষা দিতে হয়। এতে লিখিত, মৌখিক  ও ব্যাবহারিক এই তিন ধরনের  পরিক্ষা হয়। পরিক্ষার দিন লার্নার লাইসেন্স  ও কলম নিয়ে পরিক্ষায় বসতে হয়। এখানে মূলত গাড়ি ও এর রক্ষনাবেক্ষন সম্পর্কিত  ২৫/৩০ মিনিটের পরিক্ষা হয়। পাশ করার জন্য ৬৬% নম্বর পেতে হয়। পরে মৌখিক  পরিক্ষায় রাস্তার চিহ্নের কথা জানতে চাওয়া হয়। অবশেষে  জেলা ম্যাজিস্ট্রেট  এর সামনে গাড়ি পার্কিং,  জিগজ্যাগ গাড়ি চালানো,লাইন ধরে গাড়ি চালানো ইত্যাদি চালিয়ে হাতেকলমে দেখাতে হয়।

স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স

স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স
স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স

আপনার আগে করা লার্নার লাইসেন্স  এর মাধ্যমে  মোটরযান  এর প্রশিক্ষন নিয়ে পরে স্মার্টকার্ড লাইসেন্স  নিতে পারবেন ও পরে পেশাদার অপেশাদার যেকোনো রাস্তায় আইনগত  গাড়ি চালাতে পারবেন।

স্মার্টকার্ড লাইসেন্স  এর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  • স্মার্টকার্ড লাইসেন্স এর ফরম
  • রেজিস্টার  ডাক্তারে কাছ থেকে তোলা মেডিকেল সার্টিফিকেট
  • এনআইডি কার্ড বা জন্ম সনদের সত্যায়িত কপি
  • সদ্য তোলা  পাসপোর্ট  সাইজের ছবি
  • লার্নার লাইসেন্স  এর মূল কপি ও ফটোকপি
  • বিআরটিএ দ্বারা ব্যাঙ্কে  দেওয়া ফি এর রসিদ।

স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম ।

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম তথা লার্নার ড্রাইভিং  লাইসেন্স  গ্রহন করার পরে কিছু ধাপ অনুসরন করতে হবে


১ম ধাপঃ ফরমটি পূরণ  করতে হবে। যা আপনার জন্য নয় তা খালি রাখুন।


২য় ধাপঃ প্রয়োজনীয়  কাগজপত্র ফরমে যুক্ত করুন।


৩য় ধাপঃ পরিক্ষার রেজাল্ট সহ কাগজ বিআরটিএ অফিসে জমা দিন।


৪র্থ ধাপঃ ফরমটি জমার পরে প্রাপ্তি রসিদ নিন। সেখানে আপনার বায়োমেট্রিক  তথ্য দেয়ার তারিখ থাকবে।


৫ম ধাপঃ বায়োমেট্রিক  তথ্য দেওয়ার দিন অফিস থেকে টোকেন সংগ্রহ  করুন।


৬ষ্ঠ ধাপঃ টোকেন নিয়ে ভিতরে প্রবেশ করে তথ্যগুলো  পরিক্ষা করুন।


৭ম ধাপঃ তথ্যগুলো  চেক করে বায়োমেট্রিক  তথ্য হিসেবে আঙুলের  ছাপ, ছবি ও স্বাক্ষর  নেওয়া হবে।


৮ম ধাপঃ পরে আপনাকে একটি  কাগজ দেওয়া হবে যেখানে স্মার্টকার্ড লাইসেন্স  দেওয়ার তারিখ থাকবে।


৯ম ধাপঃ পরে তারিখমত গিয়ে লাইসেন্স  গ্রহন করুন এটা আপনাকে এসএমএস এর মাধ্যমে  জানানো হবে।


১০ম ধাপঃ পরে এসএমএস আসলে তা  এবং প্রাপ্তি রসিদ নিয়ে বিআরটিএ অফিসে যান।


১১শ ধাপঃ সবশেষে লাইনে দাঁড়িয়ে  লাইসেন্স  সংগ্রহ  করেন।

আন্তর্জাতিক  ড্রাইভিং  লাইসেন্স

স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং লাইসেন্স দিয়ে দেশে ভিতরে যেকোনো  জায়গায় গাড়ি চালতে পারলে বিদেশে পারবেন না।  এজন্য আপনার লাগবে আন্তর্জাতিক  ড্রাইভিং  লাইসেন্স ।  বাংলাদেশে এই লাইসেন্স  তৈরি  করা হয় যা দেশের বাইরে কার্যকর ।

আন্তর্জাতিক ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম

• স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং  লাইসেন্স  সংগ্রহ  করুন
• আন্তর্জাতিক  ড্রাইভিং  লাইসেন্স  এর ফরম সংগ্রহ  করুন ও পূরণ  করুন
• স্মার্টকার্ড লাইসেন্স  এর ফটোকপি,  ১ কপি পাসপোর্ট  সাইজ ও ৪ কপি স্ট্যাম্প  সাইজ  ছবি প্রথম ৪ টি পৃষ্ঠায় যুক্ত করুন
• ফরম ও কাগজপত্র  জমা করুন আন্তর্জাতিক  ড্রাইভিং  লাইসেন্স  এর  অফিচে এবং রসিদ সংগ্রহ  করুন
• রসিদে দেওয়া তারিখ অনুযায়ী  আন্তর্জাতিক  ড্রাইভিং  লাইসেন্স  সংগ্রহ  করুন।

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স

১৮ বছরে ড্রাইভিং  লাইসেন্স  তৈরি  করা  গেলেও পেশাদার ড্রাইভিং  লাইসেন্স  এর  জন্য ২১ বছর হতে হবে। ভারী যানবাহন  ও চাকরিতে হালকা যানবাহন  চালাতে এই লাইসেন্স  এর দরকার হয়।

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর প্রকারভেদ

১. পেশাদার হালকাঃ এই লাইসেন্স  পেতে হলে আপনার বয়স কমপক্ষে  ২০ বছর হতে হবে আর আপনি ২৫০০ কেজি এর কম ওজনের  গাড়ি চালাতে পারবেন।


২. পেশাদার মধ্যমঃ এই লাইসেন্স  পেতে আপনার বয়স ২৩ ও হালকা যান চালানোর ৩ বছরের অভিজ্ঞতা  থাকতে হবে আর আপনি ২৫০০-৬৫০০ কেজি ওজনের গাড়ি  চালাতে  পারবেন।


৩. পেশাদার ভারীঃ এই লাইসেন্স  পেতে  আপনার বয়স ২৬ ও হালকা পেশাদার ৩ বছর ও মধ্যম পেশাদার ৩ বছরে মোট ৬ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে আর আপনি ৬৫০০ কেজি এর বেশি ওজনের গাড়ি  চালাতে  পারবেন।

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার খরচ
ড্রাইভিং লাইসেন্স করার খরচ

আরও পড়ুনঃ ই-পাসপোর্ট করার নিয়ম -২০২১

জন্ম নিবন্ধন করার ‍উপায় / নিয়ম / প্রক্রিয়া ২০২১

ড্রাইভিং  লাইসেন্স  চেক করার নিয়ম

আপনি আপনার মোবাইল থেকে মেসেজ পাথিয়ে লাইসেন্স  চেক করতে পারেন।মোবাইলের মেসেজ অপশনে গিয়ে DLDM*****(* চিহ্নিত স্থানে রসিদের নম্বর বসিয়ে) পাঠিয়ে দিন ৬৯৬৯ নম্বরে তাহলেই আপনার কাছে আরেকটা  মেসেজ লাইসেন্স  এর অবস্থার জানান দিবে।

ড্রাইভিং লাইসেন্স  নবায়ন করার নিয়ম

সাধারণত  স্মার্টকার্ড পেশাদার  ড্রাইভিং  লাইসেন্স  এর  মেয়াদ ৫ বছর ও অপেশাদার লাইসেন্স  এর মেয়াদ ১০ বছর। সময় পার হয়ে গেলে আবার নবায়ন করতে হয়।

নবায়নের জন্য প্রয়োজনীয়  কাগজপত্র

• ড্রাইভিং  লাইসেন্স  নবায়ন ফরম
   • জন্ম সনদ বা এনআইডি কার্ডএর কপি
   • ফি জমা দেওয়ার রসিদ
   • রেজিস্ট্রার ডাক্তারের সার্টিফিকেট
   • ১ কপি পাসপোর্ট  সাইজ ও ১ কপি স্ট্যাম্প সাইজ  ছবি।

ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের জন্য প্রয়োজনীয় খরচ

ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের জন্য খরচ
ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের খরচ

নবায়নের নিয়ম

১ম ধাপ- পেশাদার  ড্রাইভিং  লাইসেন্সধারীদের পরিক্ষা দিতে হবে তবে অপেশাদারদের লাগবে না।
২য় ধাপ- নবায়ন ফরম পুরন করে প্রয়োজনীয়  কাগজপত্র  ফরমে  যুক্ত করে বিআরটিএ অফিসে জমা দেওয়া।
৩য় ধাপ- কাগজপত্র  ঠিক থাকার পরে আপনাকে বায়োমেট্রিক  তথ্য হিসেবে আঙুলের  ছাপ, ছবি ও স্বাক্ষর  দিয়ে লাইসেন্স  প্রিন্ট  হওয়ার আগ পর্যন্ত  অপেক্ষা করতে হবে।
৪র্থ ধাপ- প্রিন্ট এর কাজ শেষ  হলে মোবাইলে এসএমএস আসলে লাইসেন্স সংগ্রহ করতে হবে।

অতি প্রয়োজনীয় শেষ  কথা

ড্রাইভিং  লাইসেন্স  একদিকে যেমন আপনার গাড়ি চালানোর একটা বৈধ পথ নিশ্চিত করে তেমনি আপনার পরিচয় নির্ধারণে ও সাহায্য করে। তাই প্রত্যেক  নাগরিকের ড্রাইভিং  লাইসেন্স  করে নেওয়া দায়িত্ব।

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার নিয়ম সম্পর্কিত  প্রশ্ন  ও  উত্তর

(১) ড্রাইভিং  লাইসেন্স  হয়েছে কি না তা নিশ্চিত হওয়ার উপায় কি?
উত্তরঃ
মোবাইলে এসএমএস চেক করে।


(২) অনলাইনে ড্রাইভিং  লাইসেন্স  চেক করার পদ্ধতি  কি?
উত্তরঃ
অনলাইনে করা যায় না এক্ষেত্রে  আপনার রকমাত্র ভরসা হলো মোবাইলের এসএমএস।


(৩) স্মার্টকার্ড লাইসেন্স  প্রাপ্তির সময়ে উপস্থিত  না হতে পারলে কি করণীয়?
উত্তরঃ
ঠিক সময়ে না তুলতে পারলে পুনরায় ৮৭ টাকা দিয়ে লার্নার লাইসেন্স  নবায়ন করতে হবে।


(৪) স্মার্টকার্ড লাইসেন্স এ যদি প্রশিক্ষকের তথ্য চায় কোথায় পাবো?
উত্তরঃ
আপনি কোনো  প্রতিষ্ঠানে শিখলে তার তথ্য দিন আর না শিখলে পরিচিত লাইসেন্সধারীর নম্বর অনুমতি নিয়ে ফরমে যুক্ত করুন।


(৫) ঢাকার বাইরের কেউ কি ঢাকা থেকে লাইসেন্স  নিতে পারবে?
উত্তরঃ
এই ক্ষেত্রে  বর্তমান ঠিকানাকে গুরুত্ব দেওয়া হয়। তাই আপনি আপিনার চেনা একজনের ইউটিলিটি  বিল এর লাগজ জমা দিয়ে সেখান থেকে তুলতে পারবেন।


(৬) বিআরটিএ অফিসে কি আন্তর্জাতিক  ড্রাইভিং  লাইসেন্স  তুলা যায়?
উত্তরঃ
না,  শুধু নির্দিষ্ট করা অফিস থেকে তুলতে হবে। এই অফিসের শাখা একটা -৩ বি,  আউটার  সার্কুলার রোড, মগবাজার, ঢাকা।


(৭) স্মার্টকার্ড ড্রাইভিং  লাইসেন্স পরিক্ষায় কেমন প্রশ্ন আসে?
উত্তরঃ
গাড়ি চালনা ও এর রক্ষনাবেক্ষন সম্পর্কিত  প্রশ্ন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button